আলোচিত সংবাদ

নারায়ণগঞ্জে আ.লীগ সমর্থিত প্রার্থী হারলেন যারা

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (নাসিক) নির্বাচনের ২৭টি ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলর পদে আওয়ামী লীগ প্রার্থী বিজয়ের পাশাপাশি কাউন্সিলর পদে ১৫ ওয়ার্ডে জয়ী এবং ১২টি ওয়ার্ডে হেরেছে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী।

এই ১২টি ওয়ার্ডে বিজয়ী হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থীরা (বিএনপি সমর্থক ও অন্যান্য)। এদিকে সংরক্ষিত সাতটি নারী ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগ সমর্থিত চারজন এবং বিএনপি সমর্থিত দুজন এবং স্বতন্ত্র তিনজন প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন।নির্বাচন কমিশনের দেওয়া ফলাফলের তথ্য, নাসিকের ১ নম্বর ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে আওয়ামী লীগের মো. আনোয়ার ইসলাম, ২ নম্বর ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর বিএনপি নেতা ইকবাল হোসেন,

৩ নম্বর ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর আওয়ামী লীগের মো. শাহ্জালাল বাদল, ৪ নম্বর ওয়ার্ডে বিএনপি নেতা নুর উদ্দিন মিয়া, ৫ নম্বর ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর বিএনপি নেতা গোলাম মুহাম্মদ সাদরিল, ৬ নম্বর ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর ও সিদ্ধিরগঞ্জ থানা যুবলীগের সভাপতি মতিউর রহমান,৭ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগ মোহাম্মদ মিজানুর রহমান রিপন, ৮ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের বর্তমান কাউন্সিলর রুহুল আমিন, ৯ নম্বর ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর আওয়ামী লীগের ইস্রাফিল প্রধান,

১০ নম্বর ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর আওয়ামী লীগের ইফতেখার আলম খোকন, ১১ নম্বর ওয়ার্ডে বিএনপির অহিদুল ইসলাম (ছক্কু), ১২ নম্বর ওয়ার্ডে বর্তমান শহর বিএনপি কাউন্সিলর মোহাম্মদ শওকত হাসেম শকু, ১৩ নম্বর ওয়ার্ডে মহানগর যুবদলের সাবেক সভাপতি মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ, ১৪ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের সাবেক কাউন্সিলর মনিরুজ্জামান মনির, ১৫ নম্বর ওয়ার্ডে বামপন্থী নেতা অসিত বরণ বিশ্বাস পাস, ১৬ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের ওয়ায়দুল্লাহর ভাতিজা রিয়াদ হাসান ,

১৭ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের আব্দুল করিম বাবু , ১৮ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের সাবেক কাউন্সিলর ও মহানগর শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক কামরুল হাসান মুন্না, ১৯ নং ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের মোখলেছুর রহমান চৌধুরী ,২০ নম্বর ওয়ার্ডে সদ্য আওয়ামী লীগে যোগদান করা শাহেন শাহ আহম্মেদ, ২১ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের শাহীন মিয়া, ২২ নম্বর ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর ও বিএনপি নেতা সুলতান আহম্মেদ ভুঁইয়া, ২৩ নম্বর ওয়ার্ডে মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি আবুল কাউছার আশা, ২৪ নম্বও ওয়ার্ডে নারায়ণগঞ্জ মহানগর জাতীয় পার্টির সদস্য সচিব বর্তমান কাউন্সিলর আফজাল হোসেন, ২৫ নম্বর ওয়ার্ডে বর্তমান বিএনপি নেতা কাউন্সিলর এনায়েত হোসেন, ২৬ নম্বর ওয়ার্ডে বিএনপি নেতা বর্তমান কাউন্সিলর মো. সামসুজ্জোহা,২৭ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের সিরাজুল ইসলাম জয়ী হয়েছেন।

সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর প্রার্থী: ১, ২ ও ৩ নম্বর ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর আওয়ামী লীগের মাকসুদা মোজাফফর, ৪, ৫ ও ৬ নম্বর ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর আওয়ামী লীগের মনোয়ারা বেগম। ৭, ৮ ও ৯ নম্বর ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর বিএনপির নেত্রী আয়শা আক্তার দিনা, ১০, ১১ ও ১২ নম্বর ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর আওয়ামী লীগের নেত্রী মিনোয়ারা বেগম, ১৩, ১৪ ও ১৫ নম্বর ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর আওয়ামী লীগের নেত্রী শারমিন হাবীব বিন্নি। ১৬, ১৭ ও ১৮ নম্বর ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র-১ বিএনপির আফসানা আফরোজ বিভা হাসান, ১৯, ২০ ও ২১ নম্বর ওয়ার্ডে স্বতন্ত্র বর্তমান কাউন্সিলর শিউলী নওশাদ, ২২, ২৩ ও ২৪ নম্বর ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর স্বতন্ত্র শাওন অংকন, ২৫, ২৬ ও ২৭ নম্বর ওয়ার্ডে স্বতন্ত্র প্রার্থী স্বতন্ত্র সানিয়া আক্তার জয়ী হয়েছেন।

উল্লেখ্য, এই নির্বাচনে মেয়র পদে সাত প্রার্থী থাকলেও মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয় ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী ও অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকারের মধ্যে। তবে এর আগের বছর সেলিনা হায়াৎ আইভী পান ১ লাখ ৮০ হাজার ৪৮ ভোট। তার প্রতীক ছিল দেয়াতকলম। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী শামীম ওসমান দেয়াল ঘড়ি প্রতীকে পান ৭৮ হাজার ৭০৫ ভোট। দলীয় সিদ্ধান্তে মধ্যরাতে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানো বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী তৈমুর আলম খন্দকার আনারস প্রতীকে পেয়েছিলেন ৭ হাজার ৬১৬ ভোট। এছাড়া গরুর গাড়ি প্রতীকে আতিকুর রহমান নান্নু মুন্সী ৬ হাজার ৬১২ ভোট, হাঁস প্রতীকে শরীফ মোহাম্মদ ১ হাজার ৪৯৩ এবং তালা প্রতীকে আতিকুল ইসলাম জীবন ১ হাজার ৮৫৫ ভোট পান।

Related Articles

Back to top button