আলোচিত সংবাদ

দুই সন্তান নিয়ে কীভাবে বাঁচবেন নাদিমের স্ত্রী!

বাগেরহাটে কর্মরত অবস্থায় বিদ্যুতায়িত হয়ে মো. নাদিম হোসেন (২৮) নামের এক রাজমিস্ত্রির মৃত্যু হয়েছে। শনিবার সকালে বাগেরহাট সদর উপজেলার যাত্রাপুর এলাকার ব্যবসায়ী দিপঙ্করের ভবনে কাজ করার সময় এই দুর্ঘটনা ঘটে।

এ সময় মো. কামরুল (৩২) নামের আরেক রাজমিস্ত্রি গুরুতর আহত হয়েছেন। বাগেরহাট জেলা হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে কামরুলকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। নিহত নাদিম হোসেন যাত্রাপুর এলাকার দুলাল শেখের ছেলে। তার স্ত্রী এবং সাত বছর ও ১৫ মাস বয়সী দুটি মেয়ে রয়েছে।

প্রতক্ষদর্শী কবির হোসেন বলেন, ‘সকাল থেকে নাদিম, কামরুলসহ আমরা চারজন যাত্রাপুর এলাকার দিপঙ্করের ভবনে কাজ করছিলাম। সাড়ে ১১টার দিকে কলাম তৈরির জন্য ফর্মা উঠাচ্ছিলেন নাদিম হোসেন। এ সময় বিদ্যুতের তারে ফর্মা লেগে নাদিম হোসেন ও কামরুল গুরুতর আহত হন। দুইজনকে দ্রুত বাগেরহাট জেলা হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক নাদিমকে মৃত ঘোষণা করেন।’

হাসপাতালে নাদিমের মরদেহের পাশে বিলাপ করছিলেন, তার স্ত্রী, সাত বছর বয়সী চাঁদনি ও তার স্বজনরা। সংসারের একমাত্র অবলম্বন হারিয়ে কান্না থামছে না নাদিমের স্ত্রী রাবেয়া বেগমের। বাবাকে ছাড়া থাকবো কিভাবে বলে বিলাপ করছিলেন নাদিমের মেয়ে চাঁদনি।

উপার্জনের একমাত্র ব্যক্তিকে হারিয়ে বিপদে পড়েছে সংসারটি দাবি করে স্থানীয় রুহুল আমিন শেখ বলেন, ‘নাদিমের আয়ে চলতো চারজনের সংসার। দুই সন্তান নিয়ে কিভাবে বাঁচবেন নাদিমের স্ত্রী। যার বাড়িতে কাজ করছিলেন তার পক্ষ থেকে এবং সরকারিভাবে নাদিমের পরিবারকে সহযোগিতার দাবি জানান তিনি।’

বাগেরহাট জেলা হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক মো. গোলাম রাফি বলেন, ‘দুপুরে বিদ্যুতায়িত অবস্থায় দুজন রোগীকে নিয়ে এসেছিল হাসপাতালে। তার মধ্যে নাদিম নামের একজনকে মৃত অবস্থায় হাসাপাতালে আনা হয়। অন্যজন কামরুলও গুরুতর আহত। তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।’

Related Articles

Back to top button