আলোচিত সংবাদ

বিয়ের পরই মামলায় জড়ান মামুন, থাকতেন বখাটেদের সঙ্গে: পুলিশ

কলেজছাত্র মামুনকে (২২) বিয়ের মাত্র আট মাসের মাথায় উ’দ্ধার হলো কলেজশিক্ষিকা খায়রুন নাহারের (৪০) ম’রদেহ। তার মৃ’ত্যু নিয়ে সৃষ্টি হয়েছে ধু’ম্রজাল। স্বজনদের দা’বি মামুন মাদ’কাস’ক্ত। সে নানান সময় স্ত্রীর কাছে টাকা চাইতো। টাকা না দিলে অ’শান্তি করতো। এ নিয়ে মান’সিক চাপে ছিলেন কলেজশিক্ষিকা। এছাড়া বয়সে ছোট ছেলেকে বিয়ে নিয়ে স্বজন ও প্রতিবেশীদের ক’টু কথা তো আছেই।

নাটোর পিবিআইয়ের পুলিশ সুপার শরীফ উদ্দীন জানিয়েছেন, জেলা পুলিশ ঘটনার রহ’স্য উদঘা’টনের চেষ্টা করছে। আর পিবিআই পুলিশ ওই ঘটনার ছায়া তদ’ন্ত করছে। দ্রুততম সময়ের মধ্যে ঘটনার রহ’স্য উদ’ঘাটনের চেষ্টা করছে জেলা পুলিশ। কী কারণে মৃ’ত্যু হতে পারে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে পুলিশ জানিয়েছে, মামুনের মা’দকের মাম’লায় আসা’মি হওয়া, বখা’টেদের সঙ্গে মা’রামা’রি, নতুন মোটরসাইকেল চাওয়া, স্বজন ও প্রতিবেশীদের ক’টু কথা, সংসার চালানোয় টা’নাপো’ড়েন– এসব কারণে মান’সিক চা’পে ছিলেন শিক্ষিকা।

শিক্ষিকার চাচাতো ভাই সাবের হোসেনের দা’বি, বিয়ের ঘটনা ভা’ইরা’ল হওয়ার পর থেকে খায়রুন নাহারের আত্মীয়, সহকর্মী, পরিচিতজনরা বিভিন্ন স’মালো’চনা করেছেন। কেউ এটাকে প’জিটিভ আবার কেউ নে’তিবাচক প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছেন। এ নিয়ে চা’পে ছিলেন খাইরুন। তবে কী কারণে তিনি আ’ত্মহ’ত্যা করতে পারেন তা তার বো’ধগম্য নয়।

বিষয়টি তদ’ন্তের মাধ্যমে পরিষ্কার করার আহ্বান জানান তিনি। তবে খাইরুনের আগের স্বামী বা সন্তানের পক্ষ থেকে কোনও চাপের বিষয় তারা শোনেননি। ওই শি’ক্ষিকার বাবার বাড়ি গুরুদাসপুর উপজেলার চাঁচকৈ’ড়ের স্থানীয় কাউন্সিলর শেখ সবুজ জানান, মেয়ের পরিবার অ’ত্যন্ত ভালো। তবে ওই ছেলে মাদকাসক্ত বলে শোনা গেছে। এই মৃ’ত্যুর রহ’স্য দ্রুত উন্মোচনের দা’বি করেন তিনি।

এদিকে, ময়নাতদ’ন্ত শেষে গুরুদাসপুর উপজেলার চাঁচকৈড় পৌর এলাকার খামার নাচকৈড় কবরস্থানে তাকে দা’ফন করা হয়েছে। রোববার (১৪ আগস্ট) রাতে তার বাবার বাড়ি এলাকায় জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে সন্ধ্যায় ম’রদে’হের ময়’নাত’দন্ত সম্পন্ন হয়।

Related Articles

Back to top button