আলোচিত সংবাদ

হজ থেকে ফিরে সিনেমার পারিশ্রমিক চাইলেন নায়িকা সালওয়া

এ বছর পবিত্র হজ পালন করেছেন নবাগত নায়িকা নিশাত নাওয়ার সালওয়া। হজে যাওয়ার পর গুঞ্জন চাউর হয় অভিনয় ছেড়ে দিচ্ছেন তিনি। তবে সালওয়া তখন জানিয়েছিলেন এমন কিছুই না। আগের মতোই অভিনয় চালিয়ে যাবেন তিনি।

হজ শেষে দেশে ফিরে অনেকটাই চুপ ছিলেন এই সুন্দরী।তবে আজ শনিবার ২০ আগস্ট ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন সালওয়া। সেখানে তিনি ‘বুবুজান’ সিনেমায় অভিনয়ের জন্য পারিশ্রমিক দাবি করেছেন।এই নায়িকা লিখেছেন, কোনো প্রযোজনা সংস্থার কারও ব্যক্তিগত সমস্যার দায়ভার কি আর্টিস্ট এর!!! পরিচালক

শামিম আহমেদ রনি পরিচালিত ‘বুবুজান’ ফিল্মের শুটিং ও ডাবিং শেষ হওয়ার দীর্ঘদিন পেরিয়ে গেলেও শাপলা মিডিয়া সংশ্লিষ্ট কেউ আর্টিস্ট-এর পেমেন্ট ক্লিয়ার করার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করছেন না। আমি যোগাযোগের চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছি। অথচ তাদের অন্যান্য সকল কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে! এ ধরনের অপেশাদার আচরণ কখনোই কাম্য নয়।এদিকে ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ ২০১৮’র পর কয়েকটি সিনেমায় কাজ করছেন সালওয়া। তার অভিনীত মুক্তি প্রতীক্ষিত সিনেমার মধ্যে রয়েছে ‘বীরত্ব’, ‘বুবুজান’ ও ‘এই তুমি, সেই তুমি’।

আরো পড়ুন> এবার স্বামী বাইরে থাকায় ঘরের দরজা না লাগিয়ে ঘুমিয়ে পড়েন চার মাসের অন্তঃসত্ত্বা। এ সুযোগে অন্ধকার ঘরে ঢোকেন প্রতিবেশীর জামাই মিরাজুল ইসলাম। অন্ধকারে স্বামী ভেবে করেন শারীরিক মেলামেশাও। কিন্তু বাতি জ্বালাতেই দেখেন অন্য কেউ। এরপরই অন্তঃসত্ত্বার চিৎকারে পালিয়ে যান মিরাজুল। ঘটনাটি বগুড়ার শেরপুরের। গত ১০ জুলাই উপজেলার সুঘাট ইউনিয়নের বিনোদপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটলেও গত বুধবার অভিযুক্ত মিরাজুলকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরে অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে কুপ্রস্তাব দিচ্ছিলেন একই গ্রামের আকালুর খালাতো বোনের স্বামী মিরাজুল। কিন্তু তার প্রস্তাবে রাজি হননি গৃহবধূ। ১০ জুলাই সন্ধ্যায় গৃহবধূর বাড়িতে এসে স্বামীকে নিয়ে বেড়াতে যান তিনি। চার মাসের অন্তঃসত্ত্বা ও অসুস্থ হওয়ায় ঘরের দরজা না লাগিয়ে ঘুমিয়ে পড়েন গৃহবধূ।এদিন রাত গভীর হতেই কৌশলে গৃহবধূর স্বামীকে বাইরে রেখে ঘরে ঢোকেন মিরাজুল। এরপর তার সঙ্গে শারীরিক মেলামেশা করেন। পরে ঘরের

বাতি জ্বালিয়ে দেখেন তার স্বামী নন। ওই সময় ভুক্তভোগীর চিৎকারে পালিয়ে যান মিরাজুল।এ বিষয়ে শেরপুর থানার ওসি শহিদুল ইসলাম বলেন, এ ঘটনায় বুধবার রাতে মিরাজুলের বিরুদ্ধে শেরপুর থানায় ধর্ষণ মামলা করেন ভুক্তভোগী গৃহবধূ। মামলার পরিপ্রেক্ষিতে রাতেই অভিযান চালিয়ে মিরাজুলকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠায় পুলিশ।

Related Articles

Back to top button