আলোচিত সংবাদ

‘কইলজা পুইড়া যাইতাছে আমার মেয়েরে আইনা দে’

আমাকে তোরা সান্ত্বনা দিতে আসিস না, আমার সন্তান আমার মেয়েরে আইনা দে আমি শান্ত থাকুম। আমার কইলজা পুইড়া যাইতাছে, আমার মেয়েরে আইনা দে’।এভাবেই বিলাপ করছিলেন মঙ্গলবার (৩০ আগস্ট) রাজধানীর যাত্রাবাড়ীতে হানিফ ফ্লাইওভারে বাসের ধাক্কায় নিহত তিতুমীর কলেজের শিক্ষার্থী সাদিয়া আফরিন উর্মির মা সাজেদা আক্তার।

মেয়ের মৃত্যুর সংবাদ পেয়ে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে পরিবারের সঙ্গে আসেন সাজেদা আক্তার। হাসপাতালে এসেই জরুরি বিভাগের এদিক-সেদিক ছোটাছুটি করছেন তিনি। কখনো হাসপাতালের মেঝেতে শুয়ে কখনো আবার দাঁড়িয়ে দৌড় দিয়ে মেয়ের কাছে যাওয়ার চেষ্টা করেছেন তিনি। কখনো আবার বসে পড়ে চিৎকার করে কেঁদে উঠছেন সাজেদা। মেয়েকে দেখার জন্য ছটফট করতে থাকে সাজেদা আক্তার।

বার বার মেয়ে উর্মির কাছে যেতে চাইছেন তিনি। তার সাথে থাকা আত্মীয়-স্বজনরা তাকে সান্তনা দেওয়ার চেষ্টা করেছেন। তখন সাজেদা আক্তার তার আত্মীয়-স্বজনদের উদ্দেশে বলেন, আমাকে তোরা সান্ত্বনা দিতে আসিস না, আমার সান্তনা, আমার মেয়েকে আইনা দে, আমি শান্ত থাকুম। একপর্যায়ে এ দুর্ঘটনার সময় অপর মোটরসাইকেলে থাকা নিহতের বড় বোন আইরিন আক্তার রিমিকে জড়িয়ে ধরে সাজেদা বলেন, আমার কইলজার খবর তোরা জানিস না। আমার কইলজা পুইড়া যাইতাছে, আমার মেয়েরে আইনা দে।উর্মি কদমতলী দোলাইপার দুনিয়া ক্লাবের পাশের একটি বাড়িতে পরিবারের সঙ্গে ভাড়া থাকতেন। তার মৃত্যুর সংবাদ পেয়ে হাসপাতালে এসেছেন ওই বাড়ির মালিক লাকি।

তিনি বাংলানিউজকে জানান, উর্মি তার বোনের দ্বিতীয় বিয়েবার্ষিকী উপলক্ষে ঘুরতে যাবেন। সেজন্য সাজগোজ করে আমাকে দেখাতে আসেন এবং বলেন দেখেন তো আমাকে কেমন লাগছে। তার কিছুক্ষণ পরেই ওর মৃত্যুর সংবাদ পাই।নিহতের বোন আইরিন আক্তার রিমি বাংলানিউজকে বলেন, আমি আমার স্বামীর মোটরসাইকেলের পেছনে ছিলাম। সামনে মোটরসাইকেলে ছিল আমার দেবর নাজমুল ও আমার বোন উর্মি। চোখের পলকেই কী হলো, কিছুই বুঝতে পারিনি। পরে দেখতে পাই উর্মি রক্তাক্ত অবস্থায় ফ্লাইওভারের ওপরে পড়ে আছে। ওর মাথা থেঁতলে গেছে।

যাত্রাবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাজহারুল ইসলাম জানান, কমল নামে একটি মিনিবাস (ঢাকা যার নাম্বার মেট্রোঃ ব-১৫-৩০৬৭) হানিফ ফ্লাইওভারের ওপর উর্মিকে বহনকারী ওই মোটরসাইকেলকে ধাক্কা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই মারা যায় উর্মি। এরপর পরপরই সাইফ নামে একজনকে আটক করে পুলিশ। পরে জানা যায় তিনি ওই মিনিবাসের কন্ট্রাক্টর।মঙ্গলবার বিকেলে হানিফ ফ্লাইওভারের ওপরে বাসের ধাক্কায় মোটরসাইকেলে থাকা সাদিয়া আফরিন উর্মি (২২) মারা যায়। নিহত তিতুমীর কলেজের অনার্স (মার্কেটিং) তৃতীয় বর্ষের ছাত্রী। তার বড় বোন রিমির দ্বিতীয় বিয়েবার্ষিকী উপলক্ষে দুই মোটরসাইকেলে করে তারা ৩০০ ফিট এলাকায় ঘুরতে যাচ্ছিলেন। এ সময় উর্মি ছিলেন তার বোনের দেবর নাজমুলের মোটরসাইকেলে। আরেক মোটরসাইকেলে ছিলেন বড় বোন আইরিন ও তার স্বামী। খবর পেয়ে পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে ঢামেক হাসপাতালে নিয়ে আসে

Related Articles

Back to top button