বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

গুগলের হু’মকিতে যায়-আসে না: অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী

মা’র্কিন প্রযু’ক্তি জায়ান্ট গুগল তার সার্চ ইঞ্জিন অস্ট্রেলিয়া থেকে তুলে নেওয়ার হু’মকি দিয়েছে। তবে অস্ট্রেলিয়া এ ধরনের হু’মকির পরোয়া করে না বলে পাল্টা বিবৃতি দিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী স্কট ম’রিসন। এ নিয়ে প্রতিষ্ঠানটি ও অস্ট্রেলিয়া সরকারের মধ্যে তুমুল উত্তে’জনা সৃষ্টি হয়েছে। সংবাদ প্রকাশকদের সঙ্গে রয়্যালটি ভাগাভাগির সম্ভাব্য আইন নিয়ে দেশটির সরকারের সঙ্গে দ্বন্দ্বে জড়াল এ টেক জায়ান্ট।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের সংবাদভিত্তিক পোস্ট থেকে আয়ের ভাগ বসাতে নজিরবিহীন একটি আইন প্রণয়নের প্রস্তুতি নিচ্ছে মেলবোর্ন। ফলে প্রকাশিত সংবাদ থেকে প্রাপ্য অর্থের ব্যাপারে গুগল-ফেসবুকের সঙ্গে দরদামের সুযোগ পাবেন প্রকাশকরা। একে অস্ট্রেলিয়া সরকারের একতরফা সিদ্ধান্ত আখ্যা দিয়েছে গুগল।

গুগল বলছে, এতে গ্রাহকসেবায় বিঘ্ন ঘটবে। গুগল অস্ট্রেলিয়ার ব্যবস্থাপনা পরিচালক সিনেট শুনানিতে বলেন, মীমাংসায় না পৌঁছালে দেশটিতে গুগল সার্চ বন্ধ করে দেওয়া হতে পারে। যদিও হু’মকিতে কিচ্ছু যায়-আসে না জবাব অস্ট্রেলীয় প্রধানমন্ত্রীর।

আরো পড়ুন: ফেব্রুয়ারিতে যু’ক্তরাষ্ট্রে ৫ লাখের মৃ’ত্যুর আশ’ঙ্কা, বাইডেনের সতর্কবার্তা

বেশ কিছুদিন ধরেই এ বিষয়ে গুগলের সঙ্গে অস্ট্রেলিয়া সরকারের ঝামেলা চলছে। বিবিসির প্রতিবেদনে জানা গেছে, অস্ট্রেলীয় সরকারের নেওয়া ঐতিহাসিক আইন বাস্তবায়িত হলে সংবাদ কনটেন্টের জন্য দেশটির প্রকাশকদেরও লাভের ভাগ দিতে বাধ্য থাকবে গুগল, ফেসবুকসহ অন্য প্রযু’ক্তি কোম্পানিগুলো, যারা এ ধরনের কনটেন্ট প্রকাশ ও প্রচারের মাধ্যমে মুনাফা করে।

গুগল বলছে, এ ধরনের আইন করলে তা অস্ট্রেলিয়ায় তাদের সেবাকে বাধাগ্রস্ত করবে। অন্যদিকে অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট ম’রিসন বলেছেন, তার দেশের আইনপ্রণেতারা হু’মকিতে পিছু হটবেন না।

এ আইন হলে গুগল ও ফেসবুককে অস্ট্রেলিয়ার সংবাদ প্রকাশকদের সঙ্গে বসে কনটেন্টের মূল্য নির্ধারণের জন্য আলোচনায় আসতে হবে। প্রধানমন্ত্রী স্কট ম’রিসন বলেছেন, এ বছরই পার্লামেন্টে আইনটি পাস করার বিষয়ে তার সরকার প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

Back to top button