অন্যান্য

অ’বৈধ মোবাইল গ্রাহকদের জন্য বড় দুঃসংবাদ!!

টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা- বিটিআরসি আগামী বছরের শুরু থেকে অ’বৈধ ও নকল মোবাইল হ্যান্ডসেট বন্ধে প্রযু’ক্তি বাস্তবায়ন শুরু করতে যাচ্ছে।

প্রযু’ক্তিটি চালু হলে গ্রাহকের হাতে থাকা অ’বৈধ হ্যান্ডসেটে কোনো অ’পারেটরের সিমই চলবে না। সামনে আর দুই’মাস বাকি থাকায় এখন থেকেই প্রস্তুতি নিচ্ছে সংস্থাটি।

২০১২ সালে উদ্যোগ নেওয়ার প্রায় ৮ বছর পর এই প্রযু’ক্তি বাস্তবায়ন করতে যাচ্ছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা।বিটিআরসি চেয়ারম্যান জহুরুল হক বলেন, অ’বৈধ মোবাইল হ্যান্ডসেট বন্ধ করতে ন্যাশনাল ইকুইপমেন্ট

আইডেনটিটি রেজিস্টার (এনইআইআর) প্রযু’ক্তি সরবরাহ ও পরিচালনার দরপত্র প্রক্রিয়া প্রায় শেষের দিকে। আগামী বছর শুরু থেকে এ প্রযু’ক্তি বাস্তবায়ন শুরু হবে। তিনি জানান, ২০১৮, ২০১৯ এবং ২০২০ সালের অগাস্ট নাগাদ

মোট ১১ কোটি ৮২ লাখ ২৩ হাজার ৭৬৩টি আইএমইআই নম্বর ডেটাবেইজে যু’ক্ত করা হয়েছে। মোবাইল ফোন আম’দানিকারক, অ’পারেটর ও দেশে হ্যান্ডসেট প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে তথ্য নিয়ে এ ডেটাবেইজ তৈরি করা হয়েছে।

২০১৮ সালের আগে যেসব হ্যান্ডসেট বিক্রি হয়েছে এবং আইএমইআই নম্বর ডেটাবেইজে যু’ক্ত হয়নি এনইআইআর চালু হলে সেগুলোর কী’ হবে জানতে চাইলে বিটিআরসি প্রধান বলেন, ২০১৯ সালের অগাস্টের আগে ক্রয়কৃত যেসব সেট মোবাইল অ’পারেটরদের নেটওয়ার্কে যু’ক্ত আছে সেসব হ্যান্ডসেটগুলোকে নির্ধারিত সময়ের জন্য নিবন্ধিত করার একটা সুযোগ দেওয়া হবে।

বিদেশ থেকে হ্যান্ডসেট নিয়ে আসার বিষয়ে তিনি বলেন, সেক্ষেত্রে ক্রয়ের রশিদ ও আনুষঙ্গিক কাজগপত্র সংরক্ষণ করতে হবে। পরবর্তীতে এনইআইর চালু হলে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র পর্যালোচনা করে সেসব আইএমইআই নিবন্ধনের সুযোগ রাখা হবে।

বিটিআরসি বার বার সতর্কতা জানিয়ে বলে আসছে, মোবাইল হ্যান্ডসেট কেনার আগে আইএমইআইর মাধ্যমে সেটটির বৈধতা যাচাই করে নিতে হবে। বিক্রেতার কাছ থেকে হ্যান্ডসেট কেনার রশিদ নিতে হবে।

মোবাইল ফোনের বৈধতা যাচাইয়ের পদ্ধতি হল মোবাইল ফোনের ম্যাসেজ অ’পশনে গিয়ে KYD স্পেস ১৫ ডিজিটের আইএমইআই নম্বর লিখে 16002 নম্বরে পাঠাতে হবে।

মোবাইল ফোনের প্যাকে’টে প্রিন্টেড স্টিকার থেকে অথবা *#06# ডায়াল করার মাধ্যমে তাৎক্ষণিকভাবে সংশ্লিষ্ট হ্যান্ডসেটের আইএমইআই জানা যাবে।

Back to top button