আন্তর্জাতিক

অবশেষে স্পেসএক্সের রকে’টের সফল উৎক্ষেপণ

ইলন মাস্কের স্পেসএক্সের পরীক্ষা অবশেষে সফল হল। টেক্সা’সের বেস থেকে স্টারশিপের প্রটোটাইপের এ পরীক্ষা সফল হয়। পরপর চারবার ব্যর্থতার মুখ দেখার পর সাফল্য দেখল স্পেসএক্স। এর আগের চারবারই রকে’টে আ’গুন লেগে যায়। লঞ্চ কম্যান্ডার ঘোষণা করেন যে, স্টারবেস ফ্লাইট কন্ট্রোল জানিয়েছে, স্টারশিপটি ল্যান্ড করেছে। স্টারশিপের স্টেইনলেস স্টিলের রকেট এসএন১৫ গালফ অব মেক্সিকোর ১০ কিলোমিটার উপরে উঠে তারপর ফিরে এসে ল্যান্ড করে। ছয় মিনিটের এই উড্ডয়ন সফল হয়েছে।

তবে ল্যান্ডিংয়ের পর বেস-এ ছোট আ’গুন ধরেছিল। তবে স্পেসএক্সের ব্যাখ্যা এটা একেবারেই কোনো অস্বাভাবিক বিষয় নয়। মিথেন ফুয়েলকে জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। সেখানে এটা হতে পারে বলে জানানো হয়। ইঞ্জিনিয়াররা বিষয়টি খতিয়ে দেখছেন। তবে আ’গুন সঙ্গে সঙ্গে নিয়ন্ত্রণে আনা হয়েছে।

স্পেসএক্সের প্রতিষ্ঠাতা ইলন মাস্ক টুইট করে বলেছেন, স্টারশিপের ল্যান্ডিং স্বাভাবিক ছিল। গত মাসে নাসা স্পেসএক্সের সঙ্গে ৩০০ কোটি ডলারের চুক্তি করেছে। তারা স্পেসএক্সের স্টারশিপে করে চাঁদে মহাকাশচারীদের পাঠাবে।

মাস্ক চাইছেন, সৌরমণ্ডলের বিভিন্ন গ্রহে যাওয়ার জন্য সুপার হেভি রকে’টে করে স্টারশিপকে পাঠাতে। সেই রকেট আবার ব্যবহার করা যাবে। তিনি চাঁদে ও মঙ্গলে মানুষ পাঠাতে চান। মঙ্গলে কলোনি তৈরি করতে চান তিনি। চাঁদে একটি লুনার স্টেশনও তৈরি করবেন তিনি।

Back to top button