অন্যান্য

দুটি খু’ন ও সুনসান দুই গ্রাম, ‘বি’ধ্বস্ত’ বাড়ি ঘর

কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়ক হয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজে’লার তিনলাখপীর বাসস্ট্যান্ড থেকে একটু সামনে দিয়ে ঢুকে কয়েক কিলোমিটারের পথ নিমবাড়ি। ছোট একটি সেতু পার হয়ে গ্রামে ঢুকতে চোখে পড়ে হা’মলার শিকার হয়ে ‘বি’ধ্বস্ত’ একটি বাড়ি।

অনেকের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গ্রামটিতে ‘বি’ধ্বস্ত’ এমন বড়ির সংখ্যা অনেক। একটি খু’নের ঘটনাকে কেন্দ্র করে গ্রামটিতে এখন একদিকে যেমন হা’মলা-ভাঙচুরের দৃশ্য তেমনি অনেকটাই সুনসান নীরবতা বিরাজ করছে।

খু’নের ঘটনায় সুনসান জে’লার আশুগঞ্জ উপজে’লার চরচারতলা গ্রাম। সেখানকার লতিফ বাড়ি গোষ্ঠীর পুরুষরা একদিকে যেন গ্রামছাড়া অন্যদিকে নারীরাও আছেন আতঙ্কে। হা’মলার ভ’য়ে এখন নারীরাও এলাকা ছাড়তে শুরু করেছেন। রবিবার ওই এলাকার অর্ধশত নারী সংবাদ সম্মেলন করে সুষ্ঠু পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে প্রধানমন্ত্রীর সুদৃষ্টি কামনা করেন।

নিমবাড়িতে আতঙ্ক

কসবা নিমবাড়ি গ্রামে ২০১৭ সালে পান্ডু গোষ্ঠীর রইছ মিয়া নামে এক ব্যক্তি খু’ন হন। এ ঘটনায় হওয়া দায়ের করা মা’মলার সাক্ষী রইছ মিয়ার ভাই ফয়েজ মিয়াকে হ’ত্যা করা হয় এ বছরের ১৩ মা’র্চ। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে নিমবাড়ি গ্রাম এখন অশান্ত। আ’সামি পক্ষের বাড়ি ঘরে হা’মলা-ভাঙচুর বন্ধ হয়নি।

আব্দুর রউফ (৮০) নামে এক বৃদ্ধ বলেন, ‘আমা’র তো কোনো অ’প’রাধ নাই। কিন্তু বাদী পক্ষের লোকজন আমা’র জমির ধান কে’টে নিয়েছে।’ লিনা বেগম নামে এক নারী বলেন, ‘আমাদেরকে এখনো ভ’য়ভীতি দেখানো হচ্ছে। ভ’য়ের মধ্যে আছি আম’রা।

অ’তিরিক্ত পু’লিশ সুপার (প্রশাসন ও অ’প’রাধ) মো. রইছ উদ্দিন সাংবাদিকদের কাছে হা’মলার কথা শুনেই তাৎক্ষনিকভাবে ওসিকে ফোন করে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেন। তিনি জানান, এলাকায় যেন অশান্তি সৃষ্টি না হয় সেদিকে অবশ্য পু’লিশের খেয়াল থাকবে।

নারীদের সংবাদ সম্মেলন

ভাই খু’নের ঘটনাকে কেন্দ্র করে আশুগঞ্জ উপজে’লা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজে’লা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক হানিফ মুন্সিসহ তার লোকজন চরচারতলা গ্রামে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করছেন বলে অ’ভিযোগ পাওয়া গেছে। অ’ত্যাচার নি’র্যা’তনের প্রতিবাদে রবিবার (০৯ মে) দুপুরে অর্ধশত নারী ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেছেন। ওই নারীরা চরচারতলা গ্রামের চারটি বংশের ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্য।

ভুক্তভোগী পরিবারগুলোর পক্ষে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে নার্গিস বেগম বলেন, ‘গত ২২ জানুয়ারি রাতে চরচারতলা গ্রামের লতিফ বাড়ি ও মুন্সি বাড়ি গোষ্ঠীর মধ্যে ঝগড়া হয়। ওই ঝগড়ায় কে বা কার টেঁটার আ’ঘাতে উপজে’লা চেয়ারম্যান হানিফ মুন্সির ভাই জামাল মুন্সি নি’হত হন। পরবর্তীতে জামাল মুন্সির বড়ভাই জাহাঙ্গীর মুন্সি বাদী হয়ে ২৭ জনের নাম উল্লেখ করে অ’জ্ঞাত আর ২০-২৫ জনের বি’রুদ্ধে মা’মলা দায়ের করেন। এরপর থেকেই প্রতিপক্ষের ওপর অমানবিক নি’র্যা’তন চলতে থাকে।

তিনি অ’ভিযোগ করেন, হানিফ মুন্সির নেতৃত্বে লতিফ বাড়ি, খাঁ বাড়ি, খন্দকার বাড়ি ও নাগর বাড়ি বংশের তিন শতাধিক ঘর-বাড়িতে হা’মলা, ভাঙচুর লুটতরাজ চালানো হয়। ওই চার বংশের ৬০-৬৫টি প্রবাসী পরিবারও এই লুটতরাজের শিকার হয়। হানিফ মুন্সি আওয়ামী লীগের দলীয় পদের অ’পব্যাবহার করে আমাদেরকে সর্বশান্ত করে পথে বসিয়েছে।

Back to top button