অন্যান্য

নোয়াখালীতে ৫ জনকে কু‌‌’পিয়ে জ’খম, একজনের মৃ’ত্যু

নোয়াখালীর সেনবাগ উপজে’লার মোহাম্ম’দপুর ইউনিয়নে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হা’মলায় নারীসহ একই পরিবারের ৫ জন আ’হত হয়েছেন। আ’হতদের মধ্যে নুরুল হুদা বাবুলের অবস্থা আশ’ঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে ঢাকা মেডিকেলে স্থা’নান্তর করা হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মা’রা যান তিনি। এ ঘটনায় পু’লিশ তিনজনকে গ্রে’প্তার করেছে।
শনিবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতা’লে মা’রা যান নুরুল হুদা বাবুল। নি’হত নুরুল হুদা মধ্য মোহাম্ম’দপুর গ্রামের আলী মিয়া রাজের বাড়ির মোশারফ হোসেনের ছে’লে। গ্রে’প্তারকৃতরা হচ্ছেন, একই বাড়ির জামাল উদ্দিন সুমন, কামাল হোসেন ও অন্তর।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মধ্য মোহাম্ম’দপুর গ্রামের আলী মিয়া রাজের বাড়ির মোশারফ হোসেন গং ও আব্দুর রব গং’এর মধ্যে জায়গা জমি নিয়ে পূর্ববিরোধ ছিল। গত ১৯ মে বুধবার সন্ধ্যায় আব্দুর রবের নাতি অন্তর একই বাড়ির মোশারফের ছে’লে শরিয়ত উল্যার বসতঘরের পাশে থাকা গাছ থেকে জাম’রুল ফল পাড়া অবস্থায় গাছের ওপরের অংশ ভেঙে শরিয়তের ঘরের ওপর পড়ে। এতে ঘরে ঘুমিয়ে থাকা শরিয়ত উল্যাহ বের হয়ে এ ঘটনার প্রতিবাদ করেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে আব্দুর রবের ছে’লে জামাল উদ্দিন সুমন, নূর নবী ও নাতি অন্তর চাইনিজ কুড়াল, লোহার রড ও দেশীয় অ’স্ত্র নিয়ে শরিয়তের ওপর হা’মলা চালায়।

এ সময় শরীয়তকে বাঁ’চাতে তার ভাই নুরুল হুদা বাবুল, ম’র্জিনা আক্তার, কমলা বেগম ও নাছিমা আক্তার এগিয়ে আসলে হা’মলাকারীরা তাদের সবাইকে এলোপাতাড়ি পি’টিয়ে এবং কু‌‌’পিয়ে জ’খম করে। পরে স্থানীয় লোকজন আ’হতদের উ’দ্ধার করে সেনবাগ উপজে’লা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। তাদের মধ্যে নুরুল হুদা বাবুলের অবস্থার অবনতি হলে প্রথমে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতা’লে, পরে আরও অবনতি হলে বুধবার রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতা’লে ভর্তি করা হয়। শনিবার ভোরে ওই হাসপাতা’লে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মা’রা যান তিনি।

সেনবাগ থা’নার ভা’রপ্রাপ্ত কর্মক’র্তা (ওসি) আব্দুল বাতেন মৃধা বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, হা’মলার ঘটনায় নি’হতের বাবা মোশারফ হোসেন বাদী হয়ে ৮ জনকে আ’সামি করে একটি মা’মলা দায়ের করেছেন। অ’ভিযু’ক্ত তিন আ’সামিকে গ্রে’প্তার করে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। ওই মা’মলা’টি এখন হ’ত্যা মা’মলা হবে। অ’পর আ’সামিদের গ্রে’প্তারের চেষ্টা চলছে বলেও জানার ওসি।

Back to top button