খেলাধুলা

জাতীয় দলে ফিরতে বিসিবির কাছে আশরাফুলের শেষ ১টি বার্তা

ইতিহাস আজীবন কথা বলে। ইতিহাস মানুষকে ভাবায়, তাড়িত করে। প্রতিদিনের উল্লেখযোগ্য ঘটনা কালক্রমে রূপ নেয় ইতিহাসে। সেসব ঘটনাই ইতিহাসে স্থান পায়, যা মানুষ ভুলতে চাইলেও ইতিহাস মনে করিয়ে দেয় বার বার।

ইতিহাসের আজকের এই দিনে ঠিক ২০ বছর আগে বিশ্ব ক্রিকে’টে নতুন এক ইতিহাস গড়েছিলেন বাংলাদেশের ১৭ বছরের এক যুবক, যার নাম মোহাম্ম’দ আশরাফুল।

ক্রিকে’টের বিবর্তনে এখন ২০ বছরের আগে সাদা পোশাকে জাতীয় দলে অ’ভিষেক অনেকটাই অকল্পনীয়। সেখনে বড়জোড় অনূর্ধ্ব-১৯ খেলে কেউ দ্রুত খেলে ফেলতে পারে জাতীয় দলে সেক্ষেত্রেও কিন্তু বয়স হয়ে যাবে ১৮ এর বেশি।

তারও কম বয়সে যদি কারও অ’ভিষেক হলে সেটা টেস্টে হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম। আর যদি অ’ভিষেক হয়েও যায় রেকর্ডটা ভাঙা সহ’জ হবে না। কারণ ওই বয়সে কারও পক্ষে টেস্টে সেঞ্চু’রি করা অনেকটা অসাধ্য সাধন করেই দেখোনো।

আর এই অসাধ্যই সাধন করেছিলেন মোহাম্ম’দ আশরাফুল। ২০০১ সালের আজকের দিনে (০৮ সেপ্টেস্বর) মাত্র ১৭ বছর ৬১ দিন বয়সে অ’ভিষেক টেস্টে সেঞ্চু’রির মধ্য দিয়ে বিশ্ব ক্রিকে’টে অনন্য এক নজির স্থাপন করেছিলেন মোহাম্ম’দ আশরাফুল।

কলম্বোর সিংহলিজ স্পোর্টস ক্লাব মাঠে শ্রীলঙ্কার মুরালি-ভাসদের মতো ভ’য়ংকর বোলারদের সামনে কলম্বো টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে আশরাফুল খেলেন ২১২ বলে ১১৪ রানের অসাধারণ এক ইনিংস।

তিনদিনে শেষ হওয়া কলম্বো টেস্টে ইনিংস ও ১৩৭ রানে বাংলাদেশ হারলেও মুত্তিয়া মুরালিধরণের সঙ্গে যৌথভাবে ম্যাচসেরার স্বীকৃতি পান বাংলাদেশের লিটলমাস্টার মোহাম্ম’দ আশরাফুল।

ওই সেঞ্চু’রির সুবাদে আশরাফুল যেমন নিজেকে চিনিয়েছেন তেমনি হয়েছিলেন টেস্টের সর্বকনিষ্ঠ সেঞ্চু’রিয়ান। যা এখন পর্যন্ত বিশ্ব রেকর্ড। সেই সঙ্গে বিশ্ব ক্রিকে’টে টেস্টে বাংলাদেশের সম্ভাবনার কথা ছড়ায় বিশ্ব দরবারে।

তবে বাংলাদেশের নাম ডাক বিশ্ব দরবারে ছড়িয়ে গেলেও অন্ধকারে হারিয়ে গেছেন মোহাম্ম’দ আশরাফুল। আবারো ফিরতে চাইছেন ২২ গজে খেলতে চান নতুন ইনিংস।

জাতীয় দলে ফেরার জন্য এমনি এক বার্তা দিলেন আশরাফুল। এই নিয়ে মোহাম্ম’দ আশরাফুল বলেন,“সীমত ওভা’রের ক্রিকে’টে হয়তো পারবোনা কিন্তু টেষ্ট ক্রিকে’টে দেশকে এখনো কিছু দেওয়ার বাকি আছে আমা’র। আমি দলে সুযোগ পেলে (টেষ্টে) কিছু ভাল ইনিংস খেলে নিজের অ’তীতের ভুলের প্রাইশ্চিত্ত করতে চাই।”

Back to top button